| by রিতম শাঁখারী | No comments

আমি একজন আধ্যাত্মিক লেখক

চমকে গেলেন? নাহ, চমকে যাওয়ার মত কিছু ঘটেনি। আপনি স্বাভাবিক থাকতে পারেন। কারন আপনি যেমন একজন সাধারণ মানুষ। তেমনি আমিও একজন সাধারণ মানুষ।

আসলে নিজেকে আধ্যাত্মিক বলার কারন হচ্ছে, মাঝে মাঝে মনে হয় আমি অনেক কিছু লিখতে পারি। চাইলেই লিখতে লিখতে বিশ্ব জয় করে ফেলতে পারি। আমার সমতুল্য আর কোনো লেখক নেই। সবার থেকে আমার লেখাটাই সবার প্রিয় হবে। মানুষ লাইনে দাড়িয়ে আমার লেখা কেনার জন্য উদ্বিগ্ন থাকবে।

আসলে বাস্তবে পুরো বিষয়টাই উলটো। আমি এখনো ঠিক মত কলমই ধরতে জানি না। মনের মধ্যে এসব আজব চিন্তার ঘুরপাকের কারণেই, মাঝে মাঝে নিজেকে আধ্যাত্মিক মনে হয়। মানে আধ্যাত্মিক লেখক বলতে পারেন। বড়দের মুখে শুনেছি, এধরণের মানুষদের কখনো নাকি চিন্তার ও লেখার অভাব হয় না। তবে আমার লেখার সময় লেখাই খুজে পাই না। এক লাইন লিখেই খালাস। মানে হল, ওসব আধ্যাত্মিক টাধ্যাত্মিক এর ধারে কাছেও আমি নেই।

যদি ইচ্ছে হয়, আমাকে দেখে এবার একটু চমকাতে পারেন। আমি কিছু মনে করবো না!

mm
রিতম শাঁখারী

বয়সে তেমন একটা বড় নয়। ছোট খাটো একজন মানুষ বলতে পারেন। নিজের সম্পর্কে বড়াই করে বলার মত কিছু এখনো অর্জন করতে পারিনি। ব্যাক্তিগত কিছু বলতে চাইলে, বলতে হবে এখনো বিয়েসাধি করি নাই, তাই প্রেমিকার কথা জানতে চাইয়া লজ্জা দিবেন না। বাঙালী ঘরের একজন ছোটখাটো গরীব মানুষ, তাই বাংলার খাবারটাই বেশি পছন্দ করি। আর সামাজিক প্রেক্ষাপটে আমি পুরোটাই ভিন্য। সমাজের মানুষ যখন ঘুম থেকে ওঠে তখন আমি কম্পিউটার শাটডাউন করে ঘুমাতে যাই। রাতকে ভালোবাসি, সেকারণে রাতের সৌন্দর্যকে উপভোগ করার চেষ্টা করি।