| by ritom | No comments

দার্জিলিং ভ্রমণ – পর্ব ০৭ (মিরিক পালিয়ে গেছে)

কেমন আছেন? আজ শুভ সকাল বা শুভ সন্ধ্যা বলতে ইচ্ছে করছে না। মন খারাপ আছে। বিস্তারিত জানবেন। তার আগে যদি আমার ০৬ নং পর্বটি না পড়লে, পড়ে আসার অনুরোধ রইলো

আপনারা জানেন, আজ আমাদের মিরিক যাওয়ার কথা। কিন্তু আমরা যাচ্ছি না। না যাবার পিছনে বেশ কিছু কারণ আছে। তবে কারণ গুলো, একটি বিন্দুতে আটকে আছে।

বিষয়টা খুলে বলছি। আমাদের ট্যুর শুরু আগে, আমাদের সকলের একটা বাজেট ফিক্স করি। সেটা হচ্ছে, ট্যুর এর জন্য আমরা ১২ হাজার বাংলাদেশি টাকা রাখবো। এর ভিতরে আমরা আমাদের কোনো বেক্তিগত শখ, খরচ বা শপিং থাকবে না। আমরা প্রায় ৫ জনই, এই বিষয়টা ঠিক রেখেছিলাম। মানে হচ্ছে, আমরা এই ৫ জন ১২০০০ বাংলাদেশি টাকা ট্যুর এর জন্য রেখে, নিজেদের খরচ বা শপিং এর জন্য আলাদা টাকা রাখি। আর সেখান থেকেই খরচ করি।

এতে আমাদের ট্যুরটা খুবি সাচ্ছন্দে চলে। তবে সেই একজন কে জানেন? যে কিনা নিজের বেক্তিগত খরচও সেই টাকার ভিতর ঢুকিয়ে ফেলেছে? ভাবুনতো একবার।

ভেবে পেয়েছেন? পেলে ভালো। না পেলেও সমস্যা নেই। আমি নামটা বলেই দেই। তিনি হচ্ছেন আমাদের সাখাওয়াতভ ভাই।

মূলত তিনিই মিরিক যেতে চাছেন না। কারণ, তার কাছে আর টাকা নেই। তার কাছে যা টাকা ছিল, সেটা দিয়ে শপিং আর প্যারাগ্রাইডিং করে ফেলেছেন। আমরা সবাই রিকোয়েস্ট করেছিলাম, আমরা বেবস্থা করে দেই, পরে দিয়ে দিবেন। সমস্যা নেই। কে শোনে কার কথা। তিনি কারো কাছ থেকে টাকা নিবেনও না, মিরিক জাবেনও না।
এই পৃথিবীতে যদি তীব্র লেভেলের কোনো ঘাড় বাকা মানুষ থাকে, তাহলে তিনি তাদের মধ্যে একজন।

আমরা অনেক বোঝালাম, টাও লাভ হোলো না। তাই আমাদের আজ শিলিগুরি যেতে হবে। আজ রাতটা শিলিগুরি থেকে, কাল দুপুরে বাংলাদেশের উদ্দেশে যাত্রা করবো।

মনটা খারাপ লাগছে নিশ্চয়ই আপনাদের? তাহলে একবার ভাবুন, আমাদের কি অবস্থা হয়েছিল?

হোটেলে চেকাউটের আগে বসে বসে গতকালের সেই ট্যাক্সি ড্রাইভারের কথা ভাবছিলাম। সে খুব সুন্দর একটি কথা বলেছিলেন। জানিনা অন্যরা বিষয়টা কিভাবে নিবে।

এই সেই মহান ড্রাইভার। যার গুনগান গত দুইদিন ধরে করছি। তার ছবি আছে আমার কাছে, কিন্তু তার নাম জানা নেই।
এই সেই মহান ড্রাইভার। যার গুনগান গত দুইদিন ধরে করছি। তার ছবি আছে আমার কাছে, কিন্তু তার নাম জানা নেই।

সে বলেছিল, আমরা যদি ২য় এবং ৩য় কোনো ভাষা জানি, তাহলে আমরা আর কোনো ভাষা শিখতে পারবো না। আর পারলেও খুব কষ্ট হবে। বিষয়টা কেমন?
ধরুন আপনি কলকাতার একজন মানুষ। আপনি নেপালি ভাষা শিখবেন।
আপনার প্রথম ভাষা বাংলা। এটাতে কোনো সমস্যা নেই। আর আপনি বাংলার পাশা পাশি হিন্দি আর ইংলিশ জানেন। এখন আপনি চাচ্ছেন নেপালি বা চাইনিজ শিখতে। আপনার খুব কষ্ট হবে। কারণ, যখন আপনি তেমন একটা কিছু শিখতে জাবেন, যখন সেটা বলতে পারছেন না, তখন আপনি আপনার অজান্তেই, হিন্দি বা ইংলিশ বলে ফেলবেন। এতে করে কি হল? আপনি সেই ভাষাটা থেকে একটু দূরে সরে যাচ্ছেন। চর্চা হচ্ছে না।
আবার ধরেন, আপনি হিন্দি বা ইংলিশ জানেন না। তাহলে আপনি খুব সহজেই জেকোনো ভাষা শিখতে পারবেন।

এটা অবশ্য আমি একটু চেষ্টা করে দেখেছিলাম। আসলেই সত্য কিনা। দেখলাম যে, আমি যখন হিন্দি বলতে যাই, আর কোথাও আটকে গেলে মুখ দিয়ে ইংলিশ বের হয়ে যায়।

তবে এই বিষয়গুলো একেক জনের দৃষ্টিকোন থেকে একেক রকম হবে। আমি শুধু আমার থেকে বললাম। আপনি চাইলে বিশ্বাস নাও করতে পারেন। সেটা আপনার একান্ত বেক্তিগত ব্যাপার।

মিরিক যেহেতু যাচ্ছি না, তার কোনো তারাহুরা নেই। আসতে ধিরে নাস্তা করে, তারপর বের হব। আবার গেলাম মাসীমার হোটেলে। বিরিয়ানির দুঃখ ভুলতে পারলাম নাহ। দুঃখ ভুলতে চাইলাম আলুপরটা। এটা নাকি ইন্ডিয়ার অনেক বিখ্যাত। উত্তরে জানলাম, আলুপরটার জন্য প্রীঅর্ডার দিতে হয়। এইটা কোনো কথা? খাইলাম না আলুপরটা…

এই পর্বে আর শিলিগুরি নিয়ে কিছু বলছি না। পরবর্তি পর্বে শিলিগুরি সম্পর্কে বিস্তারিত বলবো। আজ এই পর্যন্তই। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। মন্তব্য ঘরে আপনার মন্তব্য লিখুন। আর শেয়ার করতে পারেন।

পরবর্তি পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুণ।

mm
ritom

Please enter the biographical info from the user profile screen.